1. pratidinbarta24@gmail.com : admin : প্রতিদিনবার্তা২৪
  2. sajalsrabon46@gmail.com : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
করোনা আতঙ্ক : জামাআতে দূরত্ব রেখে দাঁড়ালে নামাজ হবে কি? - প্রতিদিনবার্তা২৪.কম
সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬:২৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:-
পূর্বাচল প্রবাসী সমাজ কল্যাণ সংস্থা কর্তৃক ঈদ সামগ্রী বিতরন রূপগঞ্জের কাঞ্চন পৌরসভায় ৩ মাস ধরে নিখোঁজ হওয়া এক ব্যবসায়ীর গলিত লাশ উদ্ধার । “সুইসাইড কোনো সমাধান নয়”শেখানো ব্যাক্তিটি নিজেই সুইসাইড করলেন রূপগঞ্জে ছিনতাইকারীদের হাতে পিক আপ ড্রাইভার খুন দর্শকদের অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে ঈদের পরদিন ড:মাহফুজুর রহমানের একক সঙ্গীতানুষ্ঠান “হিমেল হাওয়ায় ছুঁয়ে যায় আমায় তারুণ্যের বিজ্ঞান আয়োজিত ক্যাম্পেইনে বিজয়ী “সৃষ্টির জন্য মানবতা সংগঠন” পূর্বাচল ৩০০ ফিট রাস্তার সমু মার্কেটে বাইক দুর্ঘটনায় একজন নিহত রুপগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আবু হোসেন ভুইয়া রানুর খাদ্য সামগ্রী বিতরন ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে বৃদ্ধাশ্রমে অসহায় মায়েদের পাশে অভিনেত্রী প্রিয়া আমান মানব সেবার মহান ব্রত নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে সৃষ্টির জন্য মানবতা সংগঠন

করোনা আতঙ্ক : জামাআতে দূরত্ব রেখে দাঁড়ালে নামাজ হবে কি?

রিপোর্টারের নাম:
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৫ এপ্রিল, ২০২০
  • ১৬ বার দেখা হয়েছে

নামাজের জামাআত শুরুর আগে মুয়াজ্জিন কিংবা ইমাম সাহেবকে এ ঘোষণা দিতে শোনা যায় যে, মসজিদে পর্যাপ্ত পরিমাণ জায়গা রয়েছে, আপনারা একটু ফাঁক ফাঁক হয়ে দাঁড়ান। প্রশ্ন হলো- করোনার প্রাদুর্ভাবের এ সময়ে জামাআতে নামাজ পড়ার সময় কাতারে ফাঁক ফাঁক হয়ে দাঁড়ালে নামাজ হবে কি? এ সম্পর্কে ইসলামের বিধানই বা কী?

হাদিস পাকে কাতার সোজা এবং ফাঁক বন্ধ করে দাঁড়ানোর ব্যাপারে নির্দেশনা রয়েছে। তবে ইসলামিক স্কলারদের মতে নামাজের কাতার সোজা এবং ফাঁকা বন্ধ করে দাঁড়ানো উত্তম কিন্তু কাতারের ফাঁকা বন্ধ করে দাঁড়ানো নামাজ বিশুদ্ধ হওয়ার জন্য কোনো রোকন নয়। এমন নয় যে, কাতারে ফাঁকা থাকলে নামাজ হবে না।

নামাজের কাতারে ফাঁকা থাকলে কিংবা কাতারে ফাঁকা রেখে নামাজ পড়ে ফেললে তা আদায় হয়ে যাবে। এক্ষেত্রে কেউ কেউ বলেছেন যে, নামাজ আদায় হয়ে যাবে তবে তা মাকরূহ হবে। নামাজে এমন অনেক বিষয় আছে যা মেনে চলা জরুরি।

তবে ফোকাহায়ে কেরামের কাছে একটি বিষয় এমন যে, প্রয়োজনের ক্ষেত্রে বিধি-নিষেধ অবশিষ্ট থাকে না। পরিস্থিতির আলোকে প্রয়োজনের তাগিদে অনেক নিষিদ্ধ বিষয়ও মানুষের জন্য বৈধ।

প্রাণঘাতী মহামারি করোনাভাইরাসের এ প্রাদুর্ভাবের সময় মসজিদে জামাআতে নামাজ পড়ার সময় কাতারবন্দি মানুষের জন্য ফাঁকা হয়ে দাঁড়ানোয় কোনো ক্ষতি নেই। ফাঁকা হয়ে দাঁড়ালে নামাজ হবে না এমনটি নয়। করোনায় সংক্রমণের সম্ভাবনায় ডাক্তার কিংবা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা মোতাবেক দূরত্বে দাঁড়িয়ে নামাজ পড়লে কোনো ক্ষতি হবে।

এ কারণেই বর্তমানে মহামারি করোনার প্রাদুর্ভাবের এ সময়ে মসজিদে কাতার সোজা করার পাশাপাশি ইমাম-মুয়াজ্জিনরা গায়ে গায়ে মিশে দাঁড়ানোর পরিবর্তে ফাঁকা ফাঁকা হয়ে দাঁড়ানোর জন্য আহ্বান করেন।

মনে রাখতে হবে
ভয়াবহ কোনো পরিস্থিতি না থাকলে কিংবা কোনো সংক্রমণের ভয় না থাকলে মসজিদ কিংবা অন্য কোথাও নামাজে জামাআত অনুষ্ঠিত হলে তাতে মুসল্লিরা একে অপরের সাথে মিলে, ফাঁকা বন্ধ করে কাতার সোজা করে দাঁড়ানো সুন্নত৷ দুজন মুসল্লির মাঝে একজন দাঁড়াতে পারে এ পরিমাণ ফাঁকা রাখা সুন্নাতের পরিপন্থী৷ হাদিসের বর্ণনা থেকে তা সুস্পষ্ট। এ সম্পর্কিত কিছু হাদিস তুলে ধরা হলো-

– নামাজে কাতার সোজা করা এবং পরস্পর মিলে মিলে দাঁড়ানো সম্পর্কে হাদিসে সুস্পষ্ট ঘোষণা রয়েছে। বুখারির এক বর্ণনায় এসেছে-
أَقِيْمُوْا صُفُوْفَكُمْ وَ تَرَاصُّوا
অর্থ : আপনারা আপনাদের কাতার সোজা করুন এবং পরস্পর মিলে দাঁড়ান।’ (বুখারি)

– বুখারি মুসলিমের অন্য বর্ণনায় এসেছে-
سَوُّوا صُفُوفَكُمْ فَاِنَّ تَسْوِيَةَ الصُّفُوفِ مِن اِقَامَةِ الصَّلاةِ
অর্থ : ‘কাতার সোজা করুন, কারণ কাতার সোজা করা নামাজ প্রতিষ্ঠার অন্তর্ভুক্ত।’ (বুখারি-মুসলিম)

– নাসাঈ ও আবু দাউদের এক বর্ণনায় এসেছে-
‘কাতার সোজা করুন, কাঁধে কাঁধে মিলিয়ে দাঁড়ান, কাতারের মাঝে ফাঁক বন্ধ করুন, হাতগুলো সহজ ও স্বাভাবিকভাবে রাখুন, শয়তানের জন্য কাতারের মধ্যে খালি জায়গা বন্ধ করুন। যে ব্যক্তি কাতার মিলাবে, আল্লাহ তাকে মিলাবেন। আর যে ব্যক্তি কাতারের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করবে, আল্লাহ তাকে বিচ্ছিন্ন করে দিবেন। (আবু দাউদ, নাসাঈ)

– হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা বর্ণনা করেন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন-
مَنْ سَدّ فُرْجَةً فِى صَفٍّ رَفَعَهُ اللهُ بِهَا دَرَجَةً وَ بَنٰى لَهُ بَيْتًا فِي الْجَنّةِ
যে ব্যক্তি কাতারের মধ্যকার ফাঁক বন্ধ করবে, এর বিনিময়ে আল্লাহ তাআলা তার একটি মর্যাদা বাড়িয়ে দেবেন এবং জান্নাতে তার জন্য একটি ঘর তৈরি করবেন।’ (তাবারানি, মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা)
বৈশ্বিক প্রাণঘাতী মহামারি করোনাভাইরাস থেকে মুক্ত থাকতে মসজিদে জামাআতে অংশগ্রহণকারী মুসল্লিরা স্বাস্থ্য বিভাগের পরামর্শক্রমে নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় রেখে জামাআতে দাঁড়াবে। এ পরিস্থিতিতে ফাঁকা ফাঁকা হয়ে নামাজে দাঁড়ালেও নামাজ আদায় হয়ে যাবে।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের এ সময়ে জামাআতে নামাজ আদায়ে রাষ্ট্রীয় ও চিকিৎসকদের মতামত মেনে জামাআতে নামাজ আদায়ের প্রতি গুরুত্বারোপ করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

এ জাতীয় আরো সংবাদ..

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০প্রতিদিনবার্তা২৪.কম

Theme Customized BY LatestNews