1. pratidinbarta24@gmail.com : admin : প্রতিদিনবার্তা২৪
  2. sajalsrabon46@gmail.com : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
পুলিশি হয়রানি ও নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্রতিকার - প্রতিদিনবার্তা২৪.কম
সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৫:৪৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:-
পূর্বাচল প্রবাসী সমাজ কল্যাণ সংস্থা কর্তৃক ঈদ সামগ্রী বিতরন রূপগঞ্জের কাঞ্চন পৌরসভায় ৩ মাস ধরে নিখোঁজ হওয়া এক ব্যবসায়ীর গলিত লাশ উদ্ধার । “সুইসাইড কোনো সমাধান নয়”শেখানো ব্যাক্তিটি নিজেই সুইসাইড করলেন রূপগঞ্জে ছিনতাইকারীদের হাতে পিক আপ ড্রাইভার খুন দর্শকদের অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে ঈদের পরদিন ড:মাহফুজুর রহমানের একক সঙ্গীতানুষ্ঠান “হিমেল হাওয়ায় ছুঁয়ে যায় আমায় তারুণ্যের বিজ্ঞান আয়োজিত ক্যাম্পেইনে বিজয়ী “সৃষ্টির জন্য মানবতা সংগঠন” পূর্বাচল ৩০০ ফিট রাস্তার সমু মার্কেটে বাইক দুর্ঘটনায় একজন নিহত রুপগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আবু হোসেন ভুইয়া রানুর খাদ্য সামগ্রী বিতরন ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে বৃদ্ধাশ্রমে অসহায় মায়েদের পাশে অভিনেত্রী প্রিয়া আমান মানব সেবার মহান ব্রত নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে সৃষ্টির জন্য মানবতা সংগঠন

পুলিশি হয়রানি ও নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্রতিকার

রিপোর্টারের নাম:
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ৮ এপ্রিল, ২০২০
  • ১৯ বার দেখা হয়েছে

বাংলাদেশের সাধারন মানুষকে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কিছু দুষ্ট সদস্যের নির্যাতনের হাত থেকে বাঁচাতে বর্তমান সরকারই ২০১৩ সালে একটা আইন প্রনয়ন করেছেন অথচ আমরা কেউ জানিনা, প্রতিনিয়তই হচ্ছি কিছু কিছু দুষ্ট পুলিশের হয়রানী বা নির্যাতনের শিকার যার কোন প্রতিকার করাই যাচ্ছেনা আমাদেরই অজ্ঞতার ফলে।

আইন এবং আইন অনুযায়ী পুলিশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্নকারী এইসব দুষ্ট পুলিশের বিরুদ্বে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য প্রণয়ন করা হয়েছে- নির্যাতন এবং হেফাজতে মৃত্যু (নিবারণ) আইন, ২০১৩। এবার জেনে নিন নির্যাতনের বিরুদ্বে প্রতিকার।

এই আইনের ২ (৬) ধারাতেই সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে কোন কাজগুলো নির্যাতন হিসাবে গন্য করা হবে- “নির্যাতন’ অর্থ কষ্ট হয় এমন ধরনের শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন; এতদ্‌ব্যতীত— কোনো ব্যক্তি বা অপর কোনো ব্যক্তির নিকট হইতে তথ্য অথবা স্বীকারোক্তি আদায়ে; সন্দেহভাজন অথবা অপরাধী কোনো ব্যক্তিকে শাস্তি প্রদানে; কোনো ব্যক্তি অথবা তাহার মাধ্যমে অপর কোন ব্যক্তিকে ভয়ভীতি দেখানো; বৈষম্যের ভিত্তিতে কারো প্ররোচনা বা উস্কানি, কারো সম্মতিক্রমে অথবা নিজ ক্ষমতাবলে কোনো সরকারি কর্মকর্তা অথবা সরকারি ক্ষমতাবলে— এইরূপ কর্মসাধনও নির্যাতন হিসাবে গণ্য হইবে।

আর হেফাযতে মৃত্যু বলতে ধারা ২(৭) এ বলা হয়েছেঃ হেফাজতে মৃত্যু’ অর্থ সরকারি কোনো কর্মকর্তার হেফাজতে কোনো ব্যক্তির মৃত্যু; ইহা ছাড়াও হেফাজতে মৃত্যু বলিতে অবৈধ আটকাদেশ, আইন প্রয়োগকারী সংস্থা কর্তৃক গ্রেপ্তারকালে কোনো ব্যক্তির মৃত্যুকেও নির্দেশ করিবে; কোনো মামলায় সাক্ষী হউক বা না হউক জিজ্ঞাসাবাদকালে মৃত্যুও হেফাজতে মৃত্যুর অন্তর্ভুক্ত হইবে। যারা এই নির্যাতনের বিরুদ্বে অভিযোগ করতে পারবেন তা বলা হয়েছে ধারা ২(8)- ক্ষতিগ্রস্ত অথবা সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি যাহাকে এই আইনের অধীনে তাহার উপর অথবা তাহার সংশ্লিষ্ট বা উদ্বিগ্ন এমন কারো উপর নির্যাতন করা হইয়াছে।

নির্যাতন পরবর্তী করনীয় বলা হয়েছে ধারা ৪ এ ফৌজদারী কার্যবিধি ১৮৯৮ (Code of Criminal Procedure 1898, Act V of 1898) এ যাহা কিছুই থাকুক না কেন, তাহা সত্ত্বেও এই আইনের এখতিয়ারাধীন কোন আদালতের সামনে কোন ব্যক্তি যদি অভিযোগ করে যে, তাহাকে নির্যাতন করা হইয়াছে, তাহা হইলে উক্ত আদালত— তাৎক্ষণিকভাবে ঐ ব্যক্তির বিবৃতি লিপিবদ্ধ করিবেন; একজন রেজিস্টার্ড চিকিৎসক দ্বারা অবিলম্বে তাহার দেহ পরীক্ষার আদেশ দিবেন; অভিযোগকারী মহিলা হইলে রেজিস্টার্ড মহিলা চিকিৎসক দ্বারা পরীক্ষা করিবার ব্যবস্থা করিবেন। চিকিৎসক অভিযোগকারী ব্যক্তির দেহের জখম ও নির্যাতনের চিহ্ন এবং নির্যাতনের সম্ভাব্য সময় উল্লেখপূর্বক ২৪ ঘণ্টার মধ্যে উহার একটি রিপোর্ট তৈরী করিবেন। সংশ্লিষ্ট চিকিৎসক প্রস্তুতকৃত রিপোর্টের একটি কপি অভিযোগকারী অথবা তাহার মনোনীত ব্যক্তিকে এবং আদালতে পেশ করিবেন। চিকিৎসক যদি এমন পরামর্শ দেন যে পরীক্ষাকৃত ব্যক্তির চিকিৎসা প্রয়োজন তাহা হইলে আদালত ঐ ব্যক্তিকে হাসপাতালে ভর্তি করিবার নির্দেশ প্রদান করিবেন।

এরপরে আদালত কর্তৃক করনীয় আছে ধারা ৫ এঃ বিবৃতি লিপিবদ্ধ করিবার পর আদালত অনতিবিলম্বে বিবৃতির একটি কপি সংশ্লিষ্ট পুলিশ সুপারের কাছে বা ক্ষেত্রমত, তদূর্ধ্ব কোন পুলিশ কর্মকর্তার কাছে প্রেরণ করিবেন এবং একটি মামলা দায়েরের নির্দেশ প্রদান করিবেন। পুলিশ সুপার উক্ত আদেশ প্রাপ্তির পরপরই ঘটনা তদন্ত করিয়া চার্জ বা চার্জবিহীন রিপোর্ট পেশ করিবেন। তবে শর্ত থাকে যে, সংশ্লিষ্ট সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি যদি মনে করেন যে পুলিশ দ্বারা সুষ্ঠুভাবে তদন্ত সম্ভব নয় সেক্ষেত্রে উক্ত ব্যক্তি যদি আদালতে আবেদন করেন এবং আদালতে যদি তাহার আবেদনে এই মর্মে সন্তুষ্ট হন যে সংক্ষুব্ধ ব্যক্তির আবেদন যথার্থ সেক্ষেত্রে আদালত বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ প্রদান করিতে পারিবেন। রিপোর্ট দাখিলের সময় তদন্ত কর্মকর্তা, ক্ষেত্রমত, বিচার বিভাগীয় তদন্ত কর্মকর্তা বিবৃতিদানকারী ব্যক্তিকে তারিখসহ রিপোর্ট দাখিল সম্পর্কে আদালতকে অবহিত করিবেন। নোটিশপ্রাপ্ত কোনো ব্যক্তি বা অভিযুক্ত কোন ব্যাক্তি নোটিশ গ্রহণের ৩০ দিনের মধ্যে নিজে ব্যক্তিগতভাবে অথবা আইনজীবী মারফত আদালতে আপত্তি জানাইতে পারিবে।

আদালত সংঘটিত অপরাধের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তির পদমর্যাদার নিম্নে নহে এমন পদমর্যাদার কোন পুলিশ অফিসারকে মামলার তদন্ত অনুষ্ঠানের নির্দেশ প্রদান করিবেন। অভিযোগ যে শুধুমাত্র নির্যাতিত ব্যাক্তিই করতে পারবেন তাই নায়, অন্যকোন ব্যাক্তিও চাইলে এইরকম নির্যাতনের বিরুদ্বে প্রতিকার চাইতে পারেন ধারা ৬ মতেঃ কোনো ব্যক্তিকে অন্য কোন ব্যক্তি নির্যাতন করিয়াছে বা করিতেছে এইরূপ কোন তথ্য তৃতীয় কোন ব্যক্তি আদালতকে অবহিত করিলে আদালত ধারা ৫ মোতাবেক অভিযোগকারীর বিবৃতির ওপর নিজের মন্তব্য লিপিবদ্ধ করিয়া উক্ত ব্যক্তির নিরাপত্তা বিধান করিবেন। যদি অভিযোগকারীর বক্তব্যে আদালত এই মর্মে সন্তুষ্ট হন যে, ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করা প্রয়োজন তাহা হইলে আদালত উক্ত ঘটনাস্থল পরিদর্শন করিতে পারিবেন।

তদন্ত পদ্বতি আছে ধারা ৮ এঃ ফৌজদারী কার্যবিধিতে ভিন্নতর যাহা কিছুই থাকুক না কেন, এই আইনের অধীনে কোন অপরাধের তদন্ত প্রথম অভিযোগ লিপিবদ্ধ করিবার তারিখ হইতে পরবর্তী ৯০ কার্যদিবসের মধ্যে সম্পন্ন করিতে হইবে। কোন যুক্তিসংগত কারণে উল্লিখিত সময়ের মধ্যে তদন্ত কার্য সম্পন্ন করা সম্ভব না হইলে, তদন্তকারী কর্মকর্তা ব্যক্তিগতভাবে আদালতে উপস্থিত হইয়া বিলম্বের কারণ ব্যাখ্যা করিবেন। আদালত ক্ষতিগ্রস্ত/সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি/ব্যক্তিদের শুনানী গ্রহণ করিয়া ৩০ দিনের মধ্যে সময় বৃদ্ধির বিষয়টি নিষ্পত্তি করিবেন। এই আইনে ভিন্নরূপ কিছু না থাকিলে, কোন অপরাধের অভিযোগ দায়ের, তদন্ত, বিচার ও নিষ্পত্তির ক্ষেত্রে Code of Criminal Procedure 1898 (Act V of 1898) এর বিধানসমূহ প্রযোজ্য হইবে।এই আইনের অধীন দণ্ডনীয় সকল অপরাধ বিচারার্থ গ্রহণীয় (Cognizable), অ-আপোষযোগ্য (non-compoundable) ও জামিন অযোগ্য (non-bailable) হইবে।

এতকিছুর পর একজন অভিযুক্ত ব্যাক্তি কি সমাজে টিকে থাকতে পারবেন পুলিশের বিরুদে অভিযোগ করে? পারবেন না তাই তার সুরক্ষার জন্য একটি বিধান করা হয়েছে এই আইনের ধারা ১১ তেঃ অভিযোগকারী কোনো ব্যক্তি এই আইনে অভিযুক্ত কোনো ব্যক্তির বিরুদ্ধে নিরাপত্তা বিধানকল্পে দায়রা জজ আদালতে পিটিশন দায়ের করিতে পারিবে। রাষ্ট্র এবং যাহার বিরুদ্ধে নিরাপত্তা চাওয়া হইয়াছে তাহাদেরকে উক্ত পিটিশনের পক্ষভুক্ত করা যাইবে। পিটিশন গ্রহণ করিয়া আদালত বিবাদীকে সাত দিনের নোটিশ জারি করিবে এবং ১৪ দিনের মধ্যেই পিটিশনের ওপর একটি আদেশ প্রদান করিবে। উল্লিখিত কোনো মামলা নিষ্পত্তিকালে আদালত প্রয়োজনবোধে ঐ ব্যক্তির বিরুদ্ধে অন্যূন সাত দিনের অন্তরীণ আদেশ দিতে পারিবে এবং সময়ে সময়ে উহা বৃদ্ধি করিতে পারিবে। আদালত এই আইনের অধীনে শাস্তিযোগ্য অপরাধের তদন্ত কর্মকর্তাদের আদালতের আদেশ পালন নিশ্চিত করিবার নির্দেশ দিতে পারিবে। আদালত নিরাপত্তা প্রার্থীদের আবেদনের প্রেক্ষিতে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের আদেশ দিতে পারিবে এবং প্রয়োজনবোধে আদালত স্থানান্তর এবং বিবাদীর নির্দিষ্ট কোনো এলাকায় প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করাসহ নিরাপত্তার বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করিতে পারিবে। শুধুমাত্র নির্যাতনকারীই অপরাধী হবেন না যারা উক্ত অপরাধে সহায়তা করবেন তারাও অপরাধী হবেন ধারা ১৩ মতে।

ধারা ১৪ মতে এই অপরাধের বিচার হবে কেবলমাত্র দায়রা জজ আদালতে এবং তা মামলা দায়েরের ১৮০ দিনের মধ্যে, কোন যুক্তিসংগত কারণে উল্লেখিত সময়সীমার মধ্যে মামলার বিচারকার্য সমাপ্ত করা সম্ভব না হইলে, আদালত পরবর্তী ৩০ দিনের মধ্যে বিচারকার্য সমাপ্ত করিবে।

ধারা ১৫ মতে অপরাধ প্রমানিত হলে শাস্তি হবে, অন্যূন পাঁচ বৎসরের সশ্রম কারাদণ্ড অথবা অন্যূন পঞ্চাশ হাজার টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হইবেন এবং উহার অতিরিক্ত পঁচিশ হাজার টাকা ক্ষতিগ্রস্ত/সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি/ব্যক্তিদেরকে ক্ষতিপূরণ প্রদান করিবেন। অথবা কোনো ব্যক্তি অন্য কোনো ব্যক্তিকে যদি নির্যাতন করেন এবং উক্ত নির্যাতনের ফলে উক্ত ব্যক্তি যদি মৃত্যুবরণ করেন তাহা হইলে নির্যাতনকারী অন্যূন যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড অথবা অন্যূন এক লক্ষ টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হইবেন এবং উহার অতিরিক্ত দুই লক্ষ টাকা ক্ষতিগ্রস্ত/সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি/ব্যক্তিদেরকে ক্ষতিপূরণ প্রদান করিবেন। উক্ত অপরাধে সহায়তা বা ষড়যন্ত্রের জন্য দোষী সাব্যস্ত হইলে তিনি অন্যূন দুই বৎসরের সশ্রম কারাদণ্ড অথবা অন্যূন বিশ হাজার টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হইবেন। এই আইনের অধীনে কোন অপরাধের জন্য সাজাপ্রাপ্ত কোন ব্যক্তিকে দণ্ড ঘোষণার দিন থেকে ১৪ (চৌদ্দ) দিনের মধ্যে বর্ণিত অর্থ বিচারিক আদালতে জমা দিতে হইবে।

এইরূপ আবশ্যিকতা পূরণ ব্যতীত এই আইনের আওতায় কোন অপরাধের দণ্ডের বিরুদ্ধে কোন আপীল করা যাইবে না। আপীল করতে হলে ধারা ১৬ মতে দণ্ডাদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্ট বিভাগে আপীল করা যাইবে। আর ক্ষতিগ্রস্ত/সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি/ব্যক্তিরাও আপীল অথবা রিভিউর জন্য ঊর্ধ্বতন আদালতের দ্বারস্থ হইতে পারিবে। ধারা ১৯ মতে, কোন সরকারি কর্মকর্তা অথবা তাহার পক্ষে কর্তব্যরত কোন ব্যক্তির গাফিলতি বা অসতর্কতার কারণে অভিযোগকারী ক্ষতিগ্রস্ত হইলে অভিযুক্ত ব্যক্তিকেই প্রমাণ করিতে হইবে যে, তাহার বা তাহার পক্ষে কর্তব্যরত ব্যক্তির গাফিলতি বা অসতর্কতার কারণে ঐ ক্ষতি হয় নাই।

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

এ জাতীয় আরো সংবাদ..

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০প্রতিদিনবার্তা২৪.কম

Theme Customized BY LatestNews