1. pratidinbarta24@gmail.com : admin : প্রতিদিনবার্তা২৪
  2. sajalsrabon46@gmail.com : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
দূষণ প্রতিরোধে এক অভিনব জুস-বার "ইট রাজা" - প্রতিদিনবার্তা২৪.কম
রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:৪৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:-
পূর্বাচল প্রবাসী সমাজ কল্যাণ সংস্থা কর্তৃক ঈদ সামগ্রী বিতরন রূপগঞ্জের কাঞ্চন পৌরসভায় ৩ মাস ধরে নিখোঁজ হওয়া এক ব্যবসায়ীর গলিত লাশ উদ্ধার । “সুইসাইড কোনো সমাধান নয়”শেখানো ব্যাক্তিটি নিজেই সুইসাইড করলেন রূপগঞ্জে ছিনতাইকারীদের হাতে পিক আপ ড্রাইভার খুন দর্শকদের অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে ঈদের পরদিন ড:মাহফুজুর রহমানের একক সঙ্গীতানুষ্ঠান “হিমেল হাওয়ায় ছুঁয়ে যায় আমায় তারুণ্যের বিজ্ঞান আয়োজিত ক্যাম্পেইনে বিজয়ী “সৃষ্টির জন্য মানবতা সংগঠন” পূর্বাচল ৩০০ ফিট রাস্তার সমু মার্কেটে বাইক দুর্ঘটনায় একজন নিহত রুপগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আবু হোসেন ভুইয়া রানুর খাদ্য সামগ্রী বিতরন ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে বৃদ্ধাশ্রমে অসহায় মায়েদের পাশে অভিনেত্রী প্রিয়া আমান মানব সেবার মহান ব্রত নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে সৃষ্টির জন্য মানবতা সংগঠন

দূষণ প্রতিরোধে এক অভিনব জুস-বার “ইট রাজা”

রিপোর্টারের নাম:
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১৩ এপ্রিল, ২০২০
  • ১৬ বার দেখা হয়েছে
আপনি কি কখনও ফলের খোসায় পরিবেশন করা জুস পান করতে দেখেছেন?এমনই এক জুসবার দিয়ে আলোচিত হয়েছেন বায়োমেডিকেল ইঞ্জিনিয়ার আনন্দরাজা।যেখানে প্লাস্টিক কাপের পরিবর্তে ফলের খোসাকে ব্যবহার করা হয় পরিবেশনের পাত্র হিসেবে, ব্যবহার করা হয়না কোন স্ট্র বা টিস্যু। এতে করে একদিকে যেমন প্লাস্টিকের ব্যবহার রোধ করা যাচ্ছে অপরদিকে ফলের খোসার বর্জ্য দ্বারা পরিবেশের দুষন কমানো যাচ্ছে।
ব্যবহৃত ফলের খোসাকে ব্যবহার করা হচ্ছে গোখাদ্য হিসেবে।
বেঙ্গালুরুর মল্লেশ্বরমে ” ইট রাজা” নামে এই অনন্য জুসবার যা সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশ আলোচিত হয়েছে।হাজার হাজার জুসবারের মধ্যে এর বিশেষত হলো এখানে ফলের খোসাকেই ব্যবহার করা হয় পরিবেশনের পাত্র হিসেবে।জুসবারটির মালিক আনন্দরাজ একজন বায়ো-মেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারি,যিনি একসময় রেডিও জকি(RJ) হিসেবে বেঙ্গালুরু শহরে বিট রাজা নামে পরিচিত ছিলেন।জুসবারটি ১৯৭০ সাল থেকে উনার পিতা পরিচালনা করে আসছিলেন যেখানে গড়ে দৈনিক ৫০ রুপির মত বিক্রি হত।২০১৭ সালে পিতার মৃত্যুর পর প্রায় ছয় মাস বারটি বন্ধ ছিল।এসময় উনি ভাবতে থাকেন কিভাবে ইউনিক কিছু করা যায়,সেই থেকে উনার মাথায় শুন্য বর্জ্য জুসবারের আইডিয়া আসে,যে আইডিয়া ব্যক্তিগত সমস্যার পাশাপাশি বিশ্বের বড় একটা সমস্যার সমাধান নিয়ে আসে।মা কে সাথে নিয়ে নতুন করে শুরু করেন। জুসবারটির মালিক আনন্দরাজা মনে করেন,২৫০ মিলি একটা গ্লাস কে ধোয়ার জন্য প্রায় ২৫০ মিলি পানি অপচয় হয়,ফ্রেস ফলের খোসাকে ব্যবহার করার ফলে এই বড় একটা পানির অপচয় রোধ হয়।একসময় ৫০ রুপি বিক্রি হওয়া জুসবারে বর্তমানে দৈনিক গড়ে ৫০০০০ রুপ বিক্রি হয়।সোস্যাল মিডিয়ার কল্যানে ” ইট রাজা” জুসবার এখন অনেকের কাছেই বেশ পরিচিত একটা নাম।এই অভিনব জুসবারের স্বাদ নিতে প্রতিদিন অনেক মানুষের সমাগম ঘটে।
বর্তমানে প্রায় ৪০ প্রকার জুস পাওয়া যায়,যার অধিকাংশেই কোন চিনি ব্যবহার করা হয়না।জুসবারটির মালিক আনন্দরাজা মনে করেন,উনি জুস বিক্রি করেন না,উনি বিক্রি করেন আইডিয়া।আর একটা আইডিয়া শুধু একজন মানুষকে নয়, সারা বিশ্বকে পরিবর্তন করতে পারে।

 

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

এ জাতীয় আরো সংবাদ..

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০প্রতিদিনবার্তা২৪.কম

Theme Customized BY LatestNews