1. pratidinbarta24@gmail.com : admin : প্রতিদিনবার্তা২৪
  2. sajalsrabon46@gmail.com : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
পেটের দায়ে ছুটে চলছে পোশাক শ্রমিকরা - প্রতিদিনবার্তা২৪.কম
রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:৩৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:-
পূর্বাচল প্রবাসী সমাজ কল্যাণ সংস্থা কর্তৃক ঈদ সামগ্রী বিতরন রূপগঞ্জের কাঞ্চন পৌরসভায় ৩ মাস ধরে নিখোঁজ হওয়া এক ব্যবসায়ীর গলিত লাশ উদ্ধার । “সুইসাইড কোনো সমাধান নয়”শেখানো ব্যাক্তিটি নিজেই সুইসাইড করলেন রূপগঞ্জে ছিনতাইকারীদের হাতে পিক আপ ড্রাইভার খুন দর্শকদের অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে ঈদের পরদিন ড:মাহফুজুর রহমানের একক সঙ্গীতানুষ্ঠান “হিমেল হাওয়ায় ছুঁয়ে যায় আমায় তারুণ্যের বিজ্ঞান আয়োজিত ক্যাম্পেইনে বিজয়ী “সৃষ্টির জন্য মানবতা সংগঠন” পূর্বাচল ৩০০ ফিট রাস্তার সমু মার্কেটে বাইক দুর্ঘটনায় একজন নিহত রুপগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আবু হোসেন ভুইয়া রানুর খাদ্য সামগ্রী বিতরন ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে বৃদ্ধাশ্রমে অসহায় মায়েদের পাশে অভিনেত্রী প্রিয়া আমান মানব সেবার মহান ব্রত নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে সৃষ্টির জন্য মানবতা সংগঠন

পেটের দায়ে ছুটে চলছে পোশাক শ্রমিকরা

রিপোর্টারের নাম:
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২৭ এপ্রিল, ২০২০
  • ২৫ বার দেখা হয়েছে
সারাবিশ্বে ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাস এড়াতে বিভিন্ন দেশের সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ বা কৌশল গ্রহণ করলে,বাংলাদেশ   সরকারও বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহন করেন। পদক্ষেপগুলোর মধ্যে অন্যতম একটা পদক্ষেপ হলো,পোশাক শিল্পকারখানা বন্ধ ঘোষণা করা। শিল্পকারখানা বন্ধ ঘোষণা করার ফলে লক্ষ লক্ষ পোশাক শ্রমিক ও শিল্প শ্রম মানুষেরা কর্ম থেকে বঞ্চিত হলে,খেটে খাওয়া মানুষগুলো বিপদে পতিত হয়।
করোনা এড়াতে সরকারের তত্ত্বাবধানে শিল্পকারখানা ও পোশাক কারখানা বন্ধ করে দেওয়া হলে, শ্রমিকরা বেকার হয়ে পড়ায় খেয়ে না খেয়ে দিনরাত অতিবাহিত করছে।
সরকারিভাবে দেশের বিভিন্ন এলাকা,শহর-উপশহর লকডাউন ঘোষণা করা হলে শ্রমিক,দিনমজুর ও হতদরিদ্র পরিবারের কথা চিন্তা করে সরকার সরকারিভাবে দেশব্যাপী
দিনমজুর ও খেটে খাওয়া মানুষগুলোর মাঝে বিনামূল্যে চাল, ডাল,তেল ইত্যাদি নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য-সামগ্রী পৌঁছে দেওয়ার ঘোষণা দেন।
সরকারি ত্রাণের অধিকাংশ আত্মসাৎ করার ফলে জনগণ লকডাউনে আটকে পড়ে কাজকর্ম একেবারে ছেড়ে দিয়ে অভাবের মধ্যে দিয়ে দিন কাটাতে হচ্ছে। অনেক পরিবারের সদস্যরা না খেয়ে জীবনযাপন করছে।
অনেক এলাকার মানুষ লকডাউন অমান্য করে কাজ করছে সংসার পরিচালনা করতে। সরকার শুধু ঘোষণা দিয়েই চেয়ারে বসে আসে,কে পাচ্ছে কে পাচ্ছে, কে খেয়ে কে না খেয়ে আসে,তার খবর নেয় কে?
গরীব দুঃখী,দিনমজুর ও হতদরিদ্র পরিবারের সদস্যরা পেটের দায়ে লকডাউন অমান্য করতে বাধ্য হচ্ছে।
এবার আসু, পোশাক শ্রমিকদের কথা বলি। দেশের গরীব ও হতদরিদ্র পরিবারের অধিকাংশ মানুষ পোশাক শ্রমিক হয়ে কাজ করছে বিভিন্ন কারখানায়। অনেক কষ্টে যাদের জীবনযাপন পরিচালিত হয়,তারাই হলো পোশাক শ্রমিক।
এই লক্ষ লক্ষ পোশাক শ্রমিক আজ ঢাকা নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুরে ভির জমাচ্ছে, তার দায়ভারটা পুরোপুরি সরকারের।
মহামারী করোনা এড়াতে যখন গরীব ও হতদরিদ্র মানুষগুলো কাজ থেকে বির, তখন তাদের সাময়িক বেঁচে থাকার জন্য খাবার ও নিত্য প্রয়োজনীয়   জিনিস সঠিকভাবে বিতরণ করলে কি তারা এভাবে ছুটাছুটি করতো? যে দেশের শাসকগোষ্ঠীর জনপ্রতিনিধিরা এই মহামারীতে অসহায় মানুষের ত্রাণ-সামগ্রী অাত্মসাৎ করে,সেই দেশে কি করে গরীব, দিনমজুর ও হতদরিদ্র পরিবারের সদস্যরা
না খেয়ে থেকে লকডাউন মানবে।
অনেক পোশাক শ্রমিক একা ইনকাম করে ঢাকা নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুরে বসবাস করেও বাকি কিছু টাকা গ্রামের বাড়িতে বাবা মা পরিবার পরিজনের জন্য পাঠায়।
আজ এইসব খেটে খাওয়া মানুষগুলোর কাজ না থাকায় অনেকে অনাহারে আছে,সেদিকে কে খেয়াল করে?
পেটের দায়ে সরকারি আইন অমান্য করে পোশাক শ্রমিকরা ছুটে চলছে কর্মের সন্ধানে। যাতেকরে নিজে প পরিবারের সবাই দুবেলা খেয়ে পড়ে বেঁচে থাকতে পারে। পেটের ক্ষুধার কাছে কোনো রোগই বড় নয়,তার প্রমাণ দিচ্ছে বাংলার লক্ষ লক্ষ পোশাক শ্রমিক।
লিখেছেন-
আলাউদ্দিন হোসেন 
শিক্ষার্থী(এমবিএ)সরকারি
এডওয়ার্ড বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ,পাবনা।

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

এ জাতীয় আরো সংবাদ..

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০প্রতিদিনবার্তা২৪.কম

Theme Customized BY LatestNews